টেকনোলজি
ট্রেন্ডিং

নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম ২০২২ । বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

বিকাশ বর্তমানে খুবই জনপ্রিয় একটি মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস । বাংলাদেশের মধ্যে শীর্ষ মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস এটি। যারা নিজের জন্য নতুন একটি বিকাশ একাউন্ট করবেন ভাবছেন কিন্তু কিভাবে একাউন্ট খুলবেন তা জানেন না তাদের জন্য আজকের এই নিবন্ধ । এই নিবন্ধটি সম্প্ররন পড়ে আপনি জেনে নিতে পারবেন কিভাবে নতুন একটি বিকাশ একাউন্ট খুলবেন। বিকাশ একাউন্ট করতে কি কি লাগে এবং বিকাশ একাউন্ট খোলা সম্পর্কিত সকল তথ্য জেনে নিতে পারবেন আজকের এই নিবন্ধের মাধ্যমে। 

বিকাশ কি?

বিকাশ বাংলাদেশের একটি মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস। এটি ব্রাক ব্যাংকের একটি প্রতিষ্ঠান। বিকাশ এর মাধ্যমে আপনি ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট, পেমেন্ট ,বিল পে, মোবাইল রিচার্জ সহ আরো বিভিন্ন ধরনের সেবা পাবে । বর্তমান সময়ে সকলেরই একটি বিকাশ একাউন্ট থাকা অনেক জরুরি। যারা রেগুলার টাকা লেনদেন করেন তাদের জন্যও বিকাশ একাউন্ট থাকা অনেক সুবিধাজনক। 

কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হয়?

বিকাশ একাউন্ট করা যায় দুইটি উপায়ে , একটি হলো এজেন্ট এর দোকানে গিয়ে অন্যটি নিজের মোবাইল দিয়ে। এখন নিজের মোবাইল দিয়ে নিজেরাই বিকাশ একাউন্ট করা যায় খুব সহজে। তাই আপনি ঘরে বসেই খুলতে পারবেন নিজের বিকাশ একাউন্ট। যাদের নিজেদের স্মার্ট ফোন আছে তারা বিকাশ এপ ডাউনলোড করে খুব সহজেই নিজের বিকাশ একাউন্ট খুলে নিতে পারবেন। যাদের স্মার্টফোন নেই অথবা বিকাশ একাউন্ট খোলার বিশয়টি কিছুটা কঠিন মনে হয় তারা যেকোনো এজেন্ট এর দোকানে গিয়ে সম্পূর্ণ বিনামুল্যে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। ‘

বিকাশ একাউন্ট খোলার শর্ত সমূহ

  1. একটি মোবাইল নম্বরে শুধু একটি বিকাশ একাউন্ট খোলা যাবে
  2. একটি আইডী কার্ড দিয়ে শুধুমাত্র একটি বিকাশ একাউন্ট করা যাবে
  3. প্রয়োজনে যেকোনো নাম্বারের বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করে সেই নম্বরে নতুন বিকাশ আইডি খোলা যায়
  4. বিকাশ একাউন্ট এক নম্বর থেকে অন্য নম্বরে ট্রান্সফার করা যায় 
  5. স্মার্ট কার্ড ও এন আইডি কার্ড এর নম্বর ভিন্ন হলে দুইটি বিকাশ একাউন্ট করা যাবে
  6. বিকাশ একাউন্টের পিন যেকোনো সময় পরিবর্তন করা যাবে

নিজের মোবাইল দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি

নিজের মোবাইল দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে প্লে স্টোর অথবা এপ স্টোর থেকে বিকাশ এপ ডাউনলোড করে নিতে হবে। বিকাশ এপ এর ডাউনলোড লিঙ্ক নিচের অংশে সংযুক্ত করা আছে আপনি এখানে থেকে ডিরেক্ট বিকাশ এপ ডাউনলোড করে নিতে সক্ষম হবেন।এর পরে বিকাশ এপ ইন্সটল হয়ে গেলে নিচের পদ্ধতি অনুসরন করে ঘরে বসেই বিকাশ একাউন্ট তৈরি করতে সক্ষম হবেন।

  • বিকাশ এপ ওপেন করুন (ইন্টারনেট কানেকশন অন থাকতে হবে)
  • যদি পারমিশন চায় সেগুলো Allow করুন

Copy-of-Untitled-Design-3

  • লগ ইন/ রেজিস্ট্রেশন বোতামে ক্লিক করুন

Copy-of-Untitled-Design-4

  • যে মোবাইল নম্বরে বিকাশ একাউন্ট খুলতে চাচ্ছেন সে মোবাইল নম্বর দিন

Copy-of-Untitled-Design-5

  • মোবাইল নম্বর দিয়ে কনফার্ম করলে সে মোবাইল নম্বরে একটি ৬ ডিজিটের ভ্যারিফিকেশন কোড যাবে 
  • ভ্যারিফিকেশন কোডটি দিতে হবে এবং কনফার্ম করুন বোতামে ক্লিক করতে হবে (১২০ সেকেন্ড এর মধ্যে ভ্যারিফিকেশন কোডটি দিতে হবে নাহলে নতুন করে আবার কোড আসবে সেই কোড দিতে হবে)

Copy-of-Untitled-Design-6

  • এর পরের স্ক্রিনে বিকাশ এর কিছু শর্তাবলি প্রদর্শিত হবে । শর্ত গুলো পড়ে আমার সম্মতি আছে বোতামে ক্লিক করুন

Copy-of-Untitled-Design-7

  • এর পরের স্ক্রিনে NID কার্ডের ছবি তুলতে হবে। জাতীয় পরিচয় পত্রের ফ্রন্ট সাইউ এবং ব্যাক সাইডের  ছবি তুলে সাবমিট করতে হবে। ( খেয়াল রাখতে হবে ছবি যেন স্পট হয় এবং সম্পূর্ণ NID যেন ফ্রেমের মধ্যে থাকে , যদি ক্যামেরার পারমিশন চায় তবে তা Allow করতে হবে।
  • এর পরে ব্যাক্তির নাম, জাতীয় পরিচয়পত্র  নম্বর, পিতার নাম, মাতার নাম, ঠিকানা, রক্তের গ্রুপ সহ বেশ কিছু তথ্য প্রদর্শিত হবে। তথ্য গুলো বেশিরভাগই স্বয়ংক্রিয় ভাবেই পুরন হয়ে যাবে। তবুও তথ্য গুলো একবার মিলিয়ে দেখুন এবং কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধন করে নিতে হবে।
  • পরবর্তী বোতামে ক্লিক করলে আপনার ছবি তুলতে বলবে। আপনার মোবাইলের ফ্রন্ট ক্যামেরার মাধ্যমে আপনার চেহারার একটি ছবি তুলতে হবে। ছবি তোলার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন পর্যাপ্ত আলো থাকে এবং মাঝে মাঝে চোখের পাতা বন্ধ ও খুলতে হবে। এছাড়া যে যে সার্কেল  দেয়া থাকে সে সার্কেলের মধ্যে যেন আপনার চেহারা থাকে সে বিষয়ে নজর দিতে হবে।Copy-of-Untitled-Design-8

NID এর সকল তথ্য সঠিক থাকলে আপনার বিকাশ একাউন্ট হয়ে যাবে এবং আপনি একটি Congratulation লেখা মেসেজ পাবেন বিকাশ এর পক্ষ থেকে। এর পরে আপনাকে বিকাশ পিন সেট আপ করে নিতে হবে।

বিকাশ পিন সেট আপ করার নিয়ম

  • বিকাশ পিন সেট আপ করতে নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরন করুন।
  • *247# ডায়াল ডায়াল করুন
  • Active Bkash Menu তে প্রবেশ করুন 1 লিখে সাবমিট করুন
  • New Pin Set Up  করতে 1 লিখে সাবমিট করুন
  • এর পরে ৫ সংখ্যার একটি পিন নম্বর দিন। কনফার্ম পিন নম্বর অপশনে আবার আগের পিন নম্বরটি দিয়ে কনফার্ম করুন
  • এবার আপনার বিকাশ একাউন্ট লেনদেনের জন্য প্রস্তুত
  • এপ থেকে অথবা *247# ডায়াল করে বিকাশ এর সেবা সমূহ নিতে পারবেন।

উপরে দেয়া পদ্ধতিতে খুব সহজেই ঘরে বসে নিজের মোবাইলে বিকাশ একাউন্ট করা যাবে। যদি আপনার ফোনের বিকাশ এপে লগ ইন করা থাকে  এবং অন্য একটি একাউন্ট খুলতে চান সেক্ষেত্রে আপনাকে বিকাশ এপ এর ডাটা ক্লিয়ার করে নিতে হবে। এর পর এপে প্রবেশ করলে রেজিস্ট্রেশন অপশন পাওয়া যাবে, 

এজেন্ট এর মাধ্যমে বিকাশ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি

যারা নিজের ফোন থেকে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারছেন না বা নিজেদের কাছে স্মার্ট ফোন নেই তারা যেকোনো এগেন্ট এর দোকানে গিয়ে খুব সহজেই বিকাশ একাউন্ট খুলে নিতে পারবেন। এজেন্ট এর কাছে বিকাশ একাউন্ট খুলতে যে সকল ডকুমেন্টস প্রয়োজন হবে তা হলোঃ 

  • জাতীয় পরিচয় পত্র ( মুল কপি , ফটোকপিতে হবে না)
  • যে সিমে বিকাশ একাউন্ট খুলতে চান সে সিম এবং মোবাইল
  • যে ব্যাক্তির আইডি ব্যবহার করে বিকাশ একাউন্ট খোলা হবে তাকে সরাসরি উপস্থিত থাকতে হবে

এ সকল ডকুমেন্টস গুলো যেকোনো বিকাশ রেজিস্ট্রেশন পয়েন্টে নিয়ে গেলেই সেখানে আপনাকে বিনামুল্যে বিকাশ একাউন্ট করে দেয়া হবে। অনেকেই প্রশ্ন করেন বিকাশ একাউন্ট খুলতে কোন টাকা লাগে কিনা বা বিকাশ একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে? উত্তর হলো বিকাশ একাউন্ট খুলতে কোনো টাকা লাগে না। 

এজেন্ট এর দোকানে গিয়ে বলতে হবে আপনি একটি বিকাশ একাউন্ট খুলতে চাচ্ছেন এর পরে তারা আপনার মোবাইল নম্বর জানতে চাইবে। মোবাইল নম্বরে একটি ওটিপি আসবে সেটি তাদের বলতে হবে। এর পরে তারা আপনার কাছে থেকে NID নিবে এবং দুই পাশের ছবি তুলে সাবমিট করবে। এর পরে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সাথে তথ্য মিলিয়ে দেখবে এবং আপনার একটি ছবি উঠাবে। ছবি তোলার সময় কয়েকবার চোখের পলক ফেলতে হবে। ছবি তোলা শেষে আপনার একাউন্টটি খোলার সকল ডকুমেন্ট সাবমিট করবে। সফল ভাবে সাবমিট হবে আপনার কাছে একটি সাকসেসফুল লেখা মেসেজ আসবে। যদি আপনার সকল তথ্য ও সকল ডোকুমেন্ট সঠিক থাকে তাহলে তা যাচাই শেষে আপনার কাছে একটি মেসেজ আসবে যেখানে Congratulation লিখা থাকবে।  এর পরে নিচের নিয়মে নতুন পিন সেট আপ করে নিতে হবে। 

বিকাশ পিন সেট আপ করার নিয়ম

  • বিকাশ পিন সেট আপ করতে নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরন করুন।
  • *247# ডায়াল ডায়াল করুন
  • Active Bkash Menu তে প্রবেশ করুন 1 লিখে সাবমিট করুন
  • New Pin Set Up  করতে 1 লিখে সাবমিট করুন
  • এর পরে ৫ সংখ্যার একটি পিন নম্বর দিন। কনফার্ম পিন নম্বর অপশনে আবার আগের পিন নম্বরটি দিয়ে কনফার্ম করুন
  • এবার আপনার বিকাশ একাউন্ট লেনদেনের জন্য প্রস্তুত
  • এপ থেকে অথবা *247# ডায়াল করে বিকাশ এর সেবা সমূহ নিতে পারবেন।

কিছু ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের সমস্যা থাকার কারনে বিকাশ একাউন্ট খোলার সময় বিভিন্ন বিরম্বনায় পড়তে হয় গ্রাহকদের। সেক্ষেত্রে আপনি প্রথমে 16247 নম্বরে ফোন করে নিজের সমস্যার কথা জানাতে পারেন । বিকাশ হেল্প লাইন আপনাকে সাহাজ্য করবে। আপনি যদি নিজে নিজে একাউন্ট খুলতে চেস্টা করেন এবং ব্যারথ হন সেক্ষেত্রে বিকাশ এর যেকোনো রেজিস্ট্রেশন পয়েন্টে যোগাযোগ করুন। তারা আপনার সমস্যার সমাধানের চেস্টা করবে। এর পরেও যদি সমাধান না হয় সেক্ষেত্রে আপনি বিকাশ গ্রাহক সেবা তে যোগাযোগ করতে পারেন । আপনার নিকটস্থ বিকাশ গ্রাহক সেবার তহ্য জানতে বিকাশ এর হট লাইন নম্বর 16247 এ কল দিয়ে আপনার ঠিকানা বলুন তারা আপনাকে আপনার নিকটস্থ বিকাশ গ্রাহক সেবার ঠিকানা বলে দিবে।

এই দুই উপায়ে খুব সহজেই আপনি বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। বিকাশ একাউন্ট খুলতে যেহেতু কোনো টাকা লাগে না তাই এটি আপনি খুলে রাখতে পারেন এখন প্রায় সকলেই মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে লেনদেন করেন। 

বিকাশ একাউন্ট খোলা নিয়ে কিছু কমন প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্নঃ বিকাশ একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে? 

উত্তরঃ বিকাশ একাউন্ট খুলতে কোনো টাকা প্রয়োজন হয় না।

প্রশ্নঃ বিকাশ একাউন্ট খোলার পর লেনদেন না করলে কি একাউন্ট নষ্ট হয়ে যায়?

উত্তরঃএকাউন্ট নষ্ট হয় না তবে দীর্ঘ দিন একাউন্টে লেনদেন না হবে একাউন্ট ডিসেবল হয়ে যায়। আপনি কাস্টমার কেয়ারে গিয়ে অথবা 16247 এ কল দিয়ে তা পুনরায় সচল করতে পারবেন। ৬ মাস বা তার বেশি লেনদেন না হবে এমনটা হতে পারে ।

প্রশ্নঃ বিকাশ একাউন্ট দিয়ে কি মোবাইল রিচার্জ করা যায়?

উত্তরঃজী, বিকাশ থেকে মোবাইল রিচার্জ করা যায়।

প্রশ্নঃ বিকাশ এর ক্যাশ আউট চার্জ কত?

উত্তরঃবিকাশ এর ক্যাশ আউট চার্জ হাজারে ১৮.৫০ টাকা তবে প্রিয় এজেন্ট করে ক্যাশ আউট করলে আপনি হাজারে  ১৫ টাকা হিসেবে ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

প্রশ্নঃ একটি NID দিয়ে কয়টি বিকাশ একাউন্ট করা যায়?

উত্তরঃএকটি NID দিয়ে শুধু একটি বিকাশ একাউন্ট করা যায় । তবে যারা নতুন NID নম্বর পেয়েছেন তারা  একই NID এর দুইটী আলাদা নম্বর দিয়ে দুইটি বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন।

শেষ কথা

আশা করছি বিকাশ একাউন্ট খোলা সম্পর্কে আপনি জানতে পেরেছেন। কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলবেন বা বিকাশ একাউন্ট নিয়ে যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তাহলে এখানে প্রশ্ন করুন। এই নিবন্ধের কোনো অংশ বুঝতে না পারলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন, Result Insider BD টিম আপনার সমস্যার সমাধান করতে সবসময় চেষ্টা করে। এ বিষয়ে আরো তথ্য জানতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন ও ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন। সম্পূর্ণ আর্টিকেল পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

 

আরো দেখুনঃ  নগদ একাউন্ট খোলার নিয়ম ২০২২ । নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি জেনে নিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button