প্রযুক্তি
ট্রেন্ডিং

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবেন – জেনে নিন

অনলাইন ইনকাম কিংবা ইন্টারনেট থেকে কিভাবে আয় করা যায় সে সম্পর্কে যারা কিছুটা ঘাঁটাঘাঁটি করেছেন তারা আফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে বিভিন্ন জায়গায় শুনেছেন। আবার অনেকেই শুনেছেন যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনেকে অনেক অর্থ ইনকাম করে চলেছে ।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

যখন আপনি একটি ফেসবুক পেজ, ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে কোন অনলাইন স্টোর এর প্রোডাক্ট এর লিংক শেয়ার করবেন বা প্রমোট করবেন এবং যখন আপনার প্রমোট করা লিংক থেকে প্রবেশ করে কোন অডিয়েন্স বা ভিজিটর সেই অনলাইন স্টোর থেকে কোন পণ্য কিনবে তখন আপনি কিছু কমিশন পাবেন। স্টোর এবং ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিচারে সেই পণ্য থেকে প্রাপ্ত কমিশন কমবেশি হতে পারে।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল আপনি আপনার ওয়েবসাইট, ব্লগ পেজ, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ কিংবা অন্য কোনো মাধ্যমে অন্য মাধ্যমে অন্য কোন ওয়েবসাইটে অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম অংশগ্রহণ করে সেই কোম্পানির পণ্য এর প্রমোশন করা । সোজা ভাষায় বলতে গেলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল অন্য কোন কোম্পানির কিছু প্রোডাক্ট আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কিংবা ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে প্রমোশন করা এবং আপনার অডিয়েন্সকে সেই প্রোডাক্ট সম্পর্কে জানানো। অর্থাৎ আমরা যে অনলাইন স্টোর থেকে কিনে থাকি সে প্রোডাক্ট গুলো অনেক সময় আমরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে, বিভিন্ন ইউটিউব প্ল্যাটফর্ম থেকে , অথবা ফেসবুক পেজের মাধ্যমে কেনার সাজেশন পেয়ে থাকি। অনেক ইউটিউবাররা বিভিন্ন প্রোডাক্ট নিয়ে ইউটিউব ভিডিও বানায় এবং সে ডেসক্রিপশন বক্সে সে প্রোডাক্ট কেনার লিংক দিয়ে থাকে ,এটিই হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। অন্য কারো কোন কে প্রমোশন করা এবং আপনার মাধ্যমে সেই পণ্য বিক্রি করা হলো আফিলিয়েট মারকেটিং।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর জন্য কি প্রয়োজন হয়

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর জন্য আপনার অবশ্যই একটি ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল, ফেসবুক পেজ অথবা গ্রুপ থাকতে হবে। শুধুমাত্র ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল থাকলে হবেনা আপনার প্রয়োজন হবে অডিয়েন্সের। অডিয়েন্স ছাড়া অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্ভব নয়। আপনার পেইজ থেকে কিংবা ওয়েবসাইট থেকে যখন কেউ কোন প্রোডাক্ট সম্পর্কে ভালো রিভিউ পাবে অথবা আপনি যখন কোন প্রোডাক্ট এর প্রমোশন করবেন আপনার পেজ কিংবা ওয়েবসাইটে যদি আপনার অডিয়েন্স বেশি হয় এবং কিছু অডিয়েন্স সেই লিঙ্কে ক্লিক করে অনলাইনে স্টোর থেকে প্রোডাক্ট কিনি তাহলে তার মুনাফার একটি অংশ আপনি পাবেন। তাই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের জন্য আপনার প্রথমে প্রয়োজন হবে একটি মাধ্যমের অর্থাৎ হয় একটি ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল, ফেসবুক পেজ অথবা গ্রুপ । এছাড়াও বর্তমানে আরো অনেক অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে চলে এসেছে যেগুলো আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

affiliate-marketing

এরপরে যে বিষয়টি প্রয়োজন হবে সেটি হল অডিয়েন্স। সর্বশেষ যে বিষয়টি প্রয়োজন হবে সেটি হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কোন কোন স্টোরে অ্যাভেলেবল আছে। Amazon.com এর অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম রয়েছে। কিন্তু এমন অনেক বড় বড় কোম্পানি আছে যেগুলোর অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এখনও পর্যন্ত নেই। তাই আপনাকে অবশ্যই খুঁজে বের করতে হবে কোন কোন কোম্পানির অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম রয়েছে এবং আপনি কোন অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এর অংশ হতে চাচ্ছেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবেন

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবে কয়েকটি পদক্ষেপ জানতে হবে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুনতে অনেক জটিল মনে হলেও বিষয়টি খুবই সহজ এবং আপনি যদি একবার অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারেন এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে ইনকাম শুরু করেন তাহলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে আপনি প্রতিমাসে অনেক বেশি ইনকাম করতে সক্ষম হবেন।

  • প্রথমে আপনার একটি ফেসবুক পেজ, ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল, সোসিয়াল মিডিয়া পেজ এ জাতীয় একটি মাধ্যম থাকতে হবে। যদি না থাকে তাহলে ক্রিয়েট করতে হবে।
  • এরপরে একটি ভালো অনলাইন স্টোর এর অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এ জয়েন করতে হবে। অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এ জয়েন করার জন্য আপনাকে একটি ফরম পূরণ করতে হবে যে ফর্মে আপনার ওয়েবসাইটের কিংবা আপনার ইউটিউব চ্যানেলের নাম কি এবং আপনার এড্রেস এবং কোন মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে চান সেগুলো পূরণ করে জয়েন করতে পারবেন খুব সহজে। অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এ জয়েন করার জন্য আপনার ওয়েবসাইট কিংবা ইউটিউব চ্যানেল অথবা ফেসবুক পেজ যে বিষয়ে সে বিষয়ে কিংবা সেই বিষয়ের কাছাকাছি একটি বিষয়ের অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এ জয়েন করা উচিত সে ক্ষেত্রে আপনার অডিয়েন্স যা চায় সে পণ্যটি আপনার অডিয়েন্স এর কাছে পৌঁছাবে। এতে করে আপনার বিক্রির পরিমাণ বাড়বে এবং আপনার ইনকাম বেশি হবে।
  • এরপরে আপনাকে সিলেক্ট করতে হবে আপনি সেই অনলাইন স্টরে কোন পণ্যগুলো প্রমোশন করতে চান। সিলেক্ট করা শেষে একটি এফিলিয়েট লিংক এর মাধ্যমে ওয়েবসাইট এর ব্লগ পেজ এ অথবা ইউটিউব এর ডেসক্রিপশন বক্সে  সেই লিংক শেয়ার করে অডিয়েন্স এর মধ্যে আগ্রহ তৈরি করতে হবে।
    এরপরে আপনার শেয়ার করা সেই লিঙ্কে ক্লিক করে অথবা সেই লিংকের মাধ্যমে যারা সেই প্রোডাক্ট কিনবে তার একটি অংশ আপনি কমিশন হিসেবে পাবেন।

এই পদক্ষেপগুলো গ্রহন করে আপনি অ্যাফিলিয়েট মারকেটিং এর কাজ শুরু করতে পারবেন । ধীরে ধীরে অ্যাফিলিয়েট মারকেটিং এর দক্ষতা বাড়লে আপনি অনেক ভালো ভালো অনলাইন স্টোরের অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এ যোগ দিতে পারবেন। অনেকে অ্যাফিলিয়েট মারকেটিং এর মাধ্যমে আয় করাকে গুগল অ্যাডসেন্সের চেয়েও এগিয়ে রাখে।

 

আরো দেখুনঃ  ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার উপায় ২০২২ (A - Z)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button